অনলাইন মার্কেটপ্লেসের যে কোনো পন্য আপনি বিভিন্ন সোসাল সাইটগুলোতে মার্কেটিং/প্রোমোট করবেন, পন্য বিক্রি হলে আপনি একটি নির্দিষ্ট পরিমান কমিশন পাবেন। এটাই এফিলিয়েট মার্কেটিং।

ধরা যাক,  ই-বিনিময় একটি জনপ্রিয় মার্কেটপ্লেস থেকে কোন একটি পণ্যের লিংক আপনার সোসাল মিডিয়ার কোন একটি সাইটে শেয়ার করেছেন অথবা আপনার একটি ব্যক্তিগত ওয়েবসাইটে পন্যগুলো সুন্দর করে সাজিয়ে পন্যের ব্যবহারবিধি ও গুনাগুন ব্যাখা করেছেন ।
মানুষ প্রয়োজন অনুযায়ী পন্যগুলো খোজতে গিয়ে আপনার ওয়েবসাইটটি খুজে পেল অথবা আপনার সোসাল সাইটে একটি পোষ্ট দেখতে পেল, তারপর ক্লিক করে ই-বিনিময় সাইটটিতে গিয়ে পন্যটি অর্ডার করল, মজার বিষয়টি হচ্ছে আপনি সেই পন্যের বিপরীতে যে পরিমান কমিশন সেট করা ছিল আপনি সেই কমেশন পেয়ে যাবেন ।
কাজটি করার জন্য আপনাকে ঘর থেকে বাহিরে বের হতে হয়নি, ঘরে বসেই করেছেন, এটাই এফিলিয়েট মার্কেটিং ।

বিঃদ্রঃ আপনাকে অবশ্যই মার্কেটপ্লেসে এফিলিয়েট মার্কেটার হিসাবে রেজিষ্টাার হতে হবে ।

Read More

ফেইসবুক মার্কেটিং কৌশল নিয়ে কিছু কথা :

ফেইসবুক মার্কেটিং কৌশল এ সফল হওয়া খুব কঠিন নয় আবার পানির মত সহজও নয়, এটি একটি দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনার কাজ | আপনি হঠাৎ করে সফলতা চাইলে এবং সেটা না হলে হতাশ হবেন | প্রতিটি সফলতার পিছনে কিছু সুনিদিষ্ট ধাপ আছে যা আপনাকে অনুসরণ করতে হবে |

আসুন ফেইসবুক মার্কেটিং কৌশল  গুলি ধাপে ধাপে আলোচনা করা যাক:

১ । ফেইসবুক প্রোফাইল
প্রথমেই আপনাকে তৈরী করতে হবে একটি ভালো এবং আর্কষনীয় ফেইসবুক প্রোফাইল | কোনো ফালতু ছবি না দিয়ে নিজের প্রফেশনাল মানের হাস্যজ্জল একটি ছবি দিন, এতে সবার কাছে আপনার গ্রহণ যোগ্যতা বাড়বে | সঠিক ইনফরমেশন দেবেন এবং সম্ভব্য সকল ইনফরমেশন দেয়ার চেষ্টা করবেন । মনে রাখবেন ফেক একাউন্ট এর কানা কড়ি মূল্য নাই | প্রোফাইল এবং আপনার ফেইসবুক টি হতে হবে সাজানো গোছানো যেমন কভার ফটো ও প্রোফাইল পিকচার | চেষ্টা করবেন নিজের মেধা এবং যোগ্যতা প্রকাশ করতে যাতে সকলের মাঝে আপনাকে আলাদা করা যায় | আর গতানুগতিক এর মাঝে মিশে গেলে আপনার কোনো দাম নাই এবং আপনার কথা কেউ শুনবে না |

২ । ফ্রেন্ড লিষ্ট
ফ্রেন্ড তৈরী করার বাপারে সতর্ক হন | সবসময় ফ্রেন্ড রিকোয়েষ্ট পাঠানোর আগে এবং রিকোয়েষ্ট একসেপ্ট করার আগে দেখে নিবেন আসলে আইডিটা ফেইক কিনা । কোয়ালিটি ফ্রেন্ড তৈরী করুন, না হলে দুইটা খারাপ দিক তৈরী হতে পারে , প্রথমত দেখা গেলো যাদের অ্যাড করলেন তারা আপনার চাইতেও বড় মার্কেটার এবং আপনার উপর মার্কেটিং করে বেড়িয়ে গেলো আর একটা হতে পারে ঝিমানো অডিয়েন্স আপনি পোস্ট করেই গেলেন কিন্তু অডিয়েন্স এর ঘুম ভাঙ্গতে পারলেন না | তাই একটিভ মেম্বার যোগার করতে হবে এটা বড় একটা চ্যালেঞ্জ | সময় নিয়ে কাজটি করতে হবে যে কাওকে ফ্রেন্ড বানানো যাবে না | আর এমন কিছু করার চেষ্টা করুন যাতে আপনাকে সবাই ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠায় |

৩ । কোয়ালিটি কটেন্ট পোষ্ট
প্রোফাইল ও ফ্রেন্ড তৈরী করার পর পোস্ট এবং স্টেটাস এর কথা চলে আসে | নিয়মিত ভালো পোস্ট দিন এবং আপনার অডিয়েন্স কে প্রভাবিত করার চেষ্টা করুন | ফ্রি কিছু দেবার চেষ্টা রাখুন যা থেকে অন্যেরা কিছু শিখতে পারবে এবং উপকৃত হবে | আপনি যে বিষয়ে দক্ষ সেই বিষয়ে আর্টিকেল বা তথ্য দিন এতে করে আপনার আলাদা একটা প্রভাব তৈরী হবে | আপনি যে বিষয়ে মার্কেটিং করতে চান তার উপর পোস্ট দিন তার ভালো মন্দ নিয়ে আলোচনা করুন | শুরুতে বিক্রির অফার দেবেননা এতে খারাপ প্রভাব তৈরী হবে | এমন একটা অবস্থান সৃষ্টি করুন যে আপনি ঐ বিষয়টি ভালো ভাবে জানেন এবং কেউ প্রয়োজন হলে আপনার সাহায্য নিতে পারবে |

প্রচারণা চালানোর ক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই কৌশলী হতে হবে না হলে ভাল রেজাল্ট আসবে না | মনে রাখবেন, সরাসরি কোন অফার দিতে যাবেন না, সব চাইতে ভালো উপায় হলো এমন ভাবে কাস্টমার কে প্রভাবিত করুন যেন অফারটি তাদের দিক থেকে আসে | পারলে নিজের একটি ওয়েবসাইট তৈরী করুন এবং সেখানে লেখা লেখি করুন, ফেইসবুক ফ্রেন্ডদেরকে উক্ত সাইট এ যাবার পরামর্শ দিতে পারেন |
যারা এই কাজে সফল হয়েছেন তাদের কর্ম পন্থা ফলো করতে পারেন | বুদ্ধিমানরা সফলদেরকেই ফলো করে সফল হয় ।

আরও সোস্যাল মিডিয়া সাইট জানতে ক্লিক করুন এখানে

Read More

contact